Text size A A A
Color C C C C
পাতা

সিটিজেন চার্টার

‘‘রাখিব নিরাপদ, দেখাব আলোর পথ’’এই লক্ষ্যকে সামনে রেখে কারাগারকে সংশোধনাগার ও সেবামূলক প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তুলতে কারা বিভাগ বদ্ধপরিকর। কারাগারের প্রধান প্রধান সেবাসমূহ ও নিয়মাবলী নিম্নরূপঃ

 

 

 

নবাগত বন্দী সংক্রান্ত

 

 

(ক) আদালত হতে আগত বন্দীদের সসম্মানে গ্রহণ করা হয় এবং শ্রেণী বিন্যাস করে স্থান বরাদ্দ করা হয়; কারাগারে তাদের অধিকার ও আইনকানুন সম্পর্কে প্রাথমিক ধারণা দিয়ে তাদের উজ্জীবিত করা হয়;

 

 

(খ)  তাদের ব্যক্তিগত মালামাল হেফাজত করা হয় এবং প্রয়োজনে চিকিৎসা দেয়া হয়;

 

 

(গ)  নির্ধারিত তারিখে আদালতে প্রেরণ করা হয়;

 

 

(ঘ)  তারিখ না থাকলে সংগ্রহপূর্বক আদালতে হাজিরার ব্যবস্থা করা হয়;

 

 

(ঙ)  হতদরিদ্র বন্দীদের বিনাখরচে উকিল পাওয়ার/আইনগত সহায়তা প্রদান করা হয়;

 

 

 

(চ) আপীল দায়েরের জন্য কয়েদীদের অত্মীয়-স্বজনের সাথে যোগাযোগের পর্যাপ্ত সুযোগ দেয়া হয় এবং   আপীল করতে অসমর্থদের সরকারীভাবে আপীলের ব্যবস্থা করা হয়;     

 

বন্দীদের সাথে দেখা সাক্ষাত

 

 

(ক) সাধারণত হাজতীগণ ১৫ দিনে ১ বার, কয়েদীগণ মাসে ১ বার আত্মীয়-স্বজনের সাথে দেখা করার সুযোগলাভের অধিকারী; তবে বিশেষক্ষেত্রে এ সময়সীমা শিথিলযোগ্য;

 

 

(খ)  ডিটেন্যু ও নিরাপদ হেফাজতীদের সাথে দেখা করতে জেলা ম্যাজিস্ট্রেট/আদালতের অনুমতি লাগে;

 

(গ)  সাক্ষাতের সময় সর্বোচ্চ ৩০ মিনিট এবং সর্বোচ্চ ০৫ জন একসাথে একজনের সাথে দেখা করতে পারেন; উকিলের সাথে সাক্ষাতে অগ্রাধিকার দেয়া হয়; বন্দীদের জন্য দেয় মালামাল যথাযথভাবে পৌঁছানো হয়;

 

(ঘ) দেখা করতে টাকাপয়সা লাগেনা। কেহ টাকা চাইলে জেলার/সিনিয়র জেল সুপারকে জানান;

 

 

(ঙ)  মোবাইল বা কোন নিষিদ্ধ দ্রব্য নিয়ে সাক্ষাৎ কক্ষে প্রবেশ করা যায় না; 

 

 

(চ)  দেখা করার জন্য আবেদনপত্র লিখতে না পারলে অনুসন্ধানের সাহায্য নিন;

 

(ছ) সুলভে/নির্বিঘ্নে বন্দীদের দ্রব্যাদি সরবরাহের লক্ষ্যে কারা এলাকায় ক্যান্টিন/দোকান আছে; প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি সেখান থেকে ক্রয় করে বন্দীদের সরবরাহ করা যায়; এতে  কারাগারে অবৈধ দ্রব্যাদির অনুপ্রবেশ নিয়ন্ত্রণ সহজ হয়;

 

বিশ্রামাগারের ব্যবস্থা

 

 

(ক)  কারা এলাকায় প্রবেশ পথের পাশে বিশ্রামাগার রয়েছে; সেখানে পানীয় জল এবং টয়লেটের ব্যবস্থা আছে;

 

 

 

(গ)  অফিসে কোন সংবাদ পৌঁছাতে হলে অনুসন্ধানের সাহায্য নিন;

 

 

পিসিতে টাকা জমাদান

 

 

 

(ক) বন্দীদের ব্যক্তিগত তহবিলে টাকা জমা রাখার সুযোগ রয়েছে; ডাকযোগে অথবা ব্যক্তিগতভাবে টাকা জমা দেয়া যায়;  

 

 

ওকালতনামা স্বাক্ষর

 

 

 

(ক)  ওকালতনামা জমা দিতে কারাগারের প্রধান ফটকের সামনে বাক্স রাখা আছে;

 

 

 

(খ)  নির্ধারিত সময় অন্তর ওকালতনামা স্বাক্ষরান্তে বন্দীর কৌশলী/আত্মীয়ের নিকট হস্তান্তর করা হয়;

 

 

(গ) ওকালতনামায় বন্দীর স্বাক্ষরের জন্য টাকা লাগেনা; কেউ টাকা দাবী করলে তাৎক্ষণিকভাবে সিনিয়র জেল সুপার/জেলারকে অবহিত করুন;

 

 

 

 

 

মুক্তি সংক্রান্ত

 

 

(ক)  সাজা শেষে/জামিনে মুক্তিযোগ্য বন্দী তালিকা প্রধান ফটকের সামনে নোটিশ বোর্ডে টাঙ্গিয়ে দেয়া হয়;

 

(খ)  মুক্তিযোগ্য বন্দীদের নাম লাউড স্পিকারের মাধ্যমেও ঘোষণা করা হয়;

 

(গ) মুক্তির আদেশে ভুল থাকলে ঐ নামের তালিকাও বাইরে টাঙ্গিয়ে দেয়া হয় এবং লাউড স্পিকারের মাধ্যমে জানিয়ে দেয়া হয়;

 

বন্দীদের সাথে আচরণ

 

 

(ক)  বন্দীদের সাথে কারাগারে মানবিক আচরণ করা হয়; এখানে তাদের মৌলিক মানবাধিকার সমুন্নত; তবে শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য তাদের পরামর্শ ও নির্দেশনা দেয়া হয়;

 

 

(খ)  কারাগারের নিয়ম শৃঙ্খলা ভঙ্গজনিত অপরাধ ছাড়া অকারণে শাস্তি দেয়া হয় না;

 

 

(গ)  কারাবিধি অনুসারে প্রাপ্যতা অনুযায়ী বনদীদের খাবার,আবাসন নিশ্চিত করা হয়;

 

চিকিৎসা

 

(ক)  অসুস্থ বন্দীদের কারা হাসপাতালে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দেয়া হয়; প্রয়োজনে বাহির হাসপাতালেও প্রেরণ করা হয়;

 

 

(খ)  মাদকাসক্ত বন্দীদেরকে আলাদা করে চিকিৎসা দেয়া হয়;

 

প্রশিক্ষণ

 

(ক) শিক্ষাগত যোগ্যতা/দক্ষতা/অভ্যাস/জীবনযাত্রার প্রকৃতি ও আগ্রহ অনুযায়ী বিভিন্ন পেশায় বন্দীদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়; যাতে সাজা শেষে কর্মসংস্থান হয়;

 

কল্যাণমূলক কার্যক্রম

 

 

(ক)  নিরক্ষর বন্দীদের জন্য বাধ্যতামূলক প্রাথমিক শিক্ষা এবং শিক্ষিত বন্দীদের জ্ঞান চর্চার সুযোগ রয়েছে;

 

 

(খ)  প্রাথমিক স্বাস্থ্য জ্ঞানদানের পাশাপাশি মরণ ব্যাধি এইডসের ভয়াবহতা/প্রতিরোধ সম্পর্কে বন্দীদের সচেতন করা হয়;

 

 

(গ)   বন্দীদের স্ব স্ব ধর্ম প্রতিপালনের ব্যবস্থা রয়েছে;

 

 

(ঘ)  দরবারের মাধ্যমে বন্দীদের সমস্যা শ্রবণ করা হয় এবং সমাধানের ব্যবস্থা করা হয়;

 

 

(ঙ)  চিত্তবিনোদনের ব্যবস্থা যেমন- টিভি,রেডিও ও ক্যারাম/লুডু খেলার ব্যবস্থা রয়েছে;

 

(চ)  বন্দীদের চরিত্র সংশোধনের জন্য মোটিভেশনাল ক্লাশ চালু রয়েছে এবং নানাবিধ প্রেষণামূলক কাজ- টেলিভিশন/ফ্রিজ/রেডিও/ফ্যান/চার্জার লাইট মেরামত, প্যাকেট তৈরী, গবাদি পশু পালন, মৎস্য চাষ, উন্নত চাষাবাদ ইত্যাদি বিষয়ে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা রয়েছে;

 

(ছ)  কারাগারে বিভিন্ন প্রকার বৃত্তিমূলক ও কারিগরি প্রশিক্ষণ যেমন-মোড়া, কাপড়, কার্পেট, পাপোস, কাঠের আসবাবপত্র ইত্যাদি তৈরীর কাজ চালু আছে;

 

 

(জ)  কারাগারের ভিতরের ক্যান্টিনে সুলভে জিনিসপত্র পাওয়া যায়;

 

(ঝ)  বিধি অনুযায়ী সাজাপ্রাপ্ত বন্দীগণ নিজ জেলার কারাগারে স্থানান্তরিত হতে পারেন;

 

রেয়াত

 

(ক)  ভাল আচরণ, কারাগারের নিয়মশৃংঙ্খলা পালন, প্রশিক্ষণ গ্রহণ ও প্রশিক্ষণদান এবং শ্রমের বিনিময়ে সশ্রম সাজাপ্রাপ্ত বন্দীদের সাজার অংশ বা ক্ষেত্রভেদে তারও বেশী সাজা হ্রাসের সুযোগ রয়েছে।

 

বিঃ দ্রঃসেবা প্রাপ্তিতে কোন অসুবিধা বা হয়রানির শিকার হলে নিম্নোক্ত কর্মকর্তাদের সাথে ব্যক্তিগতভাবে/মোবাইলে যোগাযোগ করা যেতে পারে;